এমার্জেন্সি নম্বর :
90 5171 5171 / 83340 31345

অ্যাসমা ক্লিনিক

 

ডিসানের অ্যাসমা ক্লিনিকে, অ্যাসমা থাকা সত্ত্বেও কিভাবে প্রায় সুস্থ ও স্বাভাবিক ভাবে রোগী জীবনযাপন করতে পারে, সে সম্পর্কেও সচেতন করা হয় । ডিসানের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা, রোগীর সমস্যা, তার কারন ও প্রতিকার বুঝতে রোগীকে সম্পূর্ন সহায়তা করে থাকে । গর্ভাবস্থায় বা জায়গা পরিবর্তন হলে, অ্যাসমা সম্পর্কিত বিশেষ অ্যাডভাইস বা পরামর্শ দেওয়া হয় । এমারজেন্সি বা জরুরি অবস্থায়, নেবুলাইজার বা ইন্ট্রাভেনাস মেডিসিন এরও ব্যবস্থা, ডিসানে রয়েছে ।

অ্যাসমা সম্পর্কে জরুরী কিছু তথ্য

 

অ্যাসমার অ্যাটাক কীভাবে আটকানো যায় ?

অ্যাসমা বা অ্যাসমার অ্যাটাক, আটকানোর বিভিন্ন উপায় আছে , কিন্তু তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু হল –

  • অ্যাসমার সম্ভাব্য কারন নিয়ন্ত্রন : যে সকল মানুষের অ্যাসমা রয়েছে, তারা যদি তাদের অ্যাসমা ব অ্যাসমা অ্যাটাকের কারন গুলি বুঝতে পারেন ও নিয়ন্ত্রন করতে পারেন তাহলে সেটি অ্যাটাকের সম্ভাবনা বা ফলাফল দুটোই অনেক কমিয়ে দেয় । কিন্তু যেসব ক্ষেত্রে, এই কারনগুলি নিয়ন্ত্রন করা যায় না সেখানে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আগে থেকেই ওষুধ নেওয়া শুরু করা উচিত ।
  • সময়মত অ্যাসমার ওষুধ নেওয়া উচিত :বহু মানুষের ক্রনিক অ্যাসমা রয়েছে ফলে তাদের অ্যাসমার ওষুধ নিয়মিত নিতে হয় । গবেষনায় দেখা গেছে ,এই ওষুধ অ্যাসমা অ্যাটাকের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয় । তাই আপনার চিকিৎসক আপনাকে যদি অ্যাসমার ওষুধ দিয়ে থাকেন, তাহলে নিয়মিত কোন গাফিলতি ছাড়া সেই ওষুধ নেওয়া উচিত ।

 

গর্ভাবস্থায়, অ্যাসমার ওষুধ কী শিশুর উপর কোন প্রভাব ফেলে ?

গর্ভাবস্থায়, মায়ের পক্ষে নিয়মিত ওষুধ নেওয়া টা অস্বস্তিকর লাগতে পারে, যেটা খুবই স্বাভাবিক ।

আরও জানতে
ই-মেল:info@desunhospital.com (24 ঘন্টা) অথবা,
 ফোন:(+91) 86977 21124 / (+91) 83340 31345 (সোম – শনি, সকাল 10 টা – সন্ধ্যে 6 টা)
 
 

Important Contacts

দ্রুত যোগাযোগ

আপনার প্রতিবেদন সংযুক্ত